Friday, December 9, 2022
HomeQuestionsব্রেস্ট টিউমার অপারেশন খরচ

ব্রেস্ট টিউমার অপারেশন খরচ

জানবো বিডি ডট নেট এর পক্ষ থেকে আপনাদের সকলকে স্বাগতম। আজকের এই আর্টিকেলে আমরা জানবো ব্রেস্ট টিউমার অপারেশন খরচ, ব্রেস্ট টিউমার অপারেশন ভিডিও, বেস্ট টিউমার চিকিৎসা খরচ, ব্রেস্ট টিউমার বিশেষজ্ঞ রংপুর, ব্রেস্ট টিউমার বিশেষজ্ঞ চট্টগ্রাম, ব্রেস্ট টিউমার হলে করণীয় ইত্যাদি বিষয় সম্পর্কে জানব।

আমাদের www.gazivai.comওয়েবসাইট থেকে আপনার প্রয়োজনীয় পণ্য কেনাকাটা করুন। সবথেকে কম দামে পণ্য কিনতে ভিজিট করুনwww.gazivai.com

ব্রেস্ট টিউমার অপারেশন খরচ

বিষয়টি অনেক জরুরী প্রত্যেকটা নারীর জন্য, কারণ পুরো বিশ্বে যে পরিমাণ নারী ক্যান্সারে মারা যায় তার মধ্যে প্রথম তালিকায় রয়েছে স্তন বা ব্রেস্ট ক্যান্সার। যদিও বিগত বছরে জরায়ু ক্যান্সার এই  স্থানটি নিয়েছিল,  কিন্তু বর্তমানে জরায়ু ক্যান্সার কে পিছনে ফেলে স্তন ক্যান্সার,  ক্যানসারের তালিকায় প্রথম স্থান দখল করে নিয়েছে।

ব্রেস্ট টিউমার অপারেশন খরচ
ব্রেস্ট টিউমার অপারেশন খরচ

আরো পড়ুনঃ মেয়েদের স্তন – দুধ বড় টাইট করার ক্রিম কিনতে ক্লিক – এখনই কিনুন

স্তন বা ব্রেস্ট এর কিছু কোষ যখন অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে ওঠে তখন স্তন ক্যান্সার দেখা যায়। তখনই অনিয়মিত ও  অতিরিক্ত কোষগুলো বিভাজনের মাধ্যমে টিউমার বা পিন্ডে পরিণত হয় এবং রক্তনালীর লসিকা ও  অন্যান্য মাধ্যমে শরীরের বিভিন্ন জায়গায় ছড়িয়ে পড়ে। এ ছড়িয়ে পড়ার প্রবণতা ক্যান্সার রোগের আতঙ্কের কারন।

এমন অবস্থায় বিভিন্ন ধরনের আধুনিক চিকিৎসা ব্যবস্থার সাহায্য নিয়ে রোগীকে পুরোপুরি সুস্থ করে তোলা বা দীর্ঘ জীবনের নিশ্চয়তা দেওয়া সম্ভব হয়ে ওঠে না।আশার বিষয় হচ্ছে স্তন ক্যান্সার যদি আমরা  শুরুতে  বা প্রাথমিক স্তরে  শনাক্ত করতে পারি, তবে তার সঠিক চিকিৎসার মাধ্যমে প্রায় শতভাগ নিরাময় করা যায়।

  • বংশগত কারণে স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত হতে পারেন অনেকে। মা,  খালা, বোন বা মেয়ের স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে থাকলে স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি বেড়ে যায় অনেকাংশে।ব্রেস্ট টিউমার অপারেশন খরচ
  • মহিলাদের মাসিক শুরু এবং শেষের  দিকের সময়ে এই রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি নির্ভর করে।ব্রেস্ট টিউমার অপারেশন খরচ
  • যাদের 12 বছর বয়সে মাসিক শুরু হয় এবং 50 বছরের বয়সের পর মাসিক বন্ধ হয় তাদের এই রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি অনেকাংশে বেড়ে যায়।
  • লিঙ্গ ভেদে ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বাড়ে একজন নারী পুরুষের তুলনায় অনেক বেশি স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকিতে থাকেন।
  • বিশেষ করে 50 বছরে পা দিলো স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি অনেকাংশে বেড়ে যায় যেটা মোটেও পরিবর্তন যোগ্য নয়।

ব্রেস্ট টিউমার অপারেশন ভিডিও

বিশেষজ্ঞদের মতে ব্রেস্ট ক্যান্সারের ঝুঁকি এড়াতে প্রত্যেক মাসে পিরিয়ড শেষ হওয়ার পরদিন নিজে নিজে ব্রেস্ট পরীক্ষা করা উচিত। চল্লিশ বছরের কম বয়সীদের বছরে একবার এবং চল্লিশোর্ধদের বছরে দুইবার চিকিসকের মাধ্যমে তা পরীক্ষা করা প্রয়োজন ব্রেস্ট টিউমার অপারেশন খরচ

ব্রেস্ট টিউমার অপারেশন খরচ
ব্রেস্ট টিউমার অপারেশন খরচ


আরো পড়ুনঃ মেয়েদের স্তন – দুধ ছোট টাইট করার ক্রিম কিনতে ক্লিক –  এখনই কিনুন

চিকিৎসকরা বলছেন, উন্নত দেশে ক্যান্সারের চিকিৎসা ভালো হয়, এতে সন্দেহ নেই। তবে, এখানেও ব্রেস্ট ক্যান্সারসহ বেশ কিছু ক্যান্সারের চিকিৎসায় অনেকেই পুরোপুরি ভালো হচ্ছেন। বাইরে চিকিৎসার আয়োজন করতে দুই/তিন মাস লেগে যায়। ততদিনে সমস্যা বাড়ে। সাধারণত যারা এ রোগে আক্রান্ত হন তাদের উচ্চ রক্তচাপ, হার্টের সমস্যা, ডায়াবেটিসসহ বিভিন্ন রোগ থাকে।

কেমো বা রেডিওথেরাপি দেয়ার সময় এসব রোগও বেড়ে যায়। তখন সাপোর্টিভ ট্রিটমেন্ট প্রয়োজন হয়। এতো সমস্যায় রোগী অনেক অসহায় হয়ে পড়ে। মনের জোর হারিয়ে ফেলে। আবার দীর্ঘদিন বাইরে চিকিৎসা নিয়ে সার্জারি করার পর সেটা না শুকাতেই অনেকে দেশে ফেরেন। ব্রেস্ট টিউমার অপারেশন খরচ

এতে ইনফেকশন হয়। অনেকে বাইরে থেকে কেমোর ওষুধ নিয়ে আসেন। কিন্তু কেমোর ওষুধ ঠিকভাবে সংরক্ষণ না করলে তার গুণগত মান নষ্ট হয়। এ সব কারে আজকাল অনেকেই দেশে চিকিৎসা নিচ্ছেন এবং সবচেয়ে বড় কথা এখানে চিকিৎসা খরচ অনেক কম।

২০ বছর বয়স থেকে নিয়ম মাফিক ব্রেস্ট স্ক্রিনিং করালে এ ক্যান্সার জটিল আকার ধারণ করবে না। তবে ৪০-৫০ বছর বয়স্ক নারীরা ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় থাকেন। কাজেই এ সময়টা অবশ্যই ব্রেস্ট স্ক্রিনিং করিয়ে নেয়া উচিত

বেস্ট টিউমার চিকিৎসা খরচ

ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট অব ক্যান্সার রিসার্স অব হসপিটাল (এনআইসিআরএইচ)”-এর মেডিকেল অনকোলজির সাবেক অধ্যাপক ডা. পারভীন শাহিদা আখতার বলেন, ক্যান্সার ইন্সটিটিউটে যে কোনো ক্যান্সারের ভালো চিকিৎসা রয়েছে। এ হাসপাতালে খরচ খুবই কম। সরকার পর্যাপ্ত ওষুধপত্র কেনেন। এখানে কেমো থেরাপির ওষুধ বিনামূল্যে দেয়া হয়। বেডের ভাড়া কম এবং অন্যান্য পরীক্ষাগুলো নামমাত্র মূল্যে করানো হয়।

আরো পড়ুনঃ কেডস জুতা কিনতে সরাসরি ক্লিক করুন – এখনই কিনুন

আরো পড়ুনঃ লোফার জুতা কিনতে সরাসরি ক্লিক করুন – এখনই কিনুন

আরো পড়ুনঃ ওজন কমানোর ডেটক্সি স্লিম কেনার জন্য ক্লিক করুন – এখনই কিনুন

আরো পড়ুনঃ চোখের নিচে কালো দাগ দূর করার ক্রিম সরাসরি কিনতে ক্লিক করুন – এখনই কিনুন

আরো পড়ুনঃ ব্রণের দাগ, কালো দাগ, কাটা দাগ দূর করার ক্রিম সরাসরি – এখনই কিনুন

আরো পড়ুনঃ মেয়েদের নাইট ড্রেস সরাসরি কিনতে ক্লিক করুন – এখনই কিনুন

আরো পড়ুনঃ ৩০,৩২,৩৪, সাইজের স্পোর্টস ব্রা কিনতে ক্লিক – এখনই কিনুন

আরো পড়ুনঃ মেয়েদের ৩০,৩২,৩৪, সাইজের ব্রা সরাসরি কিনতে ক্লিক- এখনই কিনুন

আরো পড়ুনঃ মেয়েদের ৩০,৩২,৩৪, ফোম কাপ ব্রা সরাসরি কিনতে ক্লিক – এখনই কিনুন

আরো পড়ুনঃ  ৩০,৩২,৩৪, সুতি স্পোর্টস ব্রা সরাসরি কিনতে ক্লিক  – এখনই কিনুন

আরও পড়ুন:  সানি লিওনের এক্সপ্রেস ভিডিও

আরও পড়ুন:  রিয়েলমি 7i বাংলাদেশ প্রাইস,Realme 7i Price in Bangladesh

আরও পড়ুন: চেহারা সুন্দর করার দোয়া

আরও পড়ুন: ভার্জিন মেয়ে চেনার উপায় ছবি সহ
আরও পড়ুন: মালয়েশিয়া টু বাংলাদেশ বিমান ভাড়া কত

আরও পড়ুন: কাশির ঔষধ ট্যাবলেট ১০ টি ভালো ঔষধ.

আরও পড়ুন: সর্দির ট্যাবলেট ১০ টি ভালো ঔষধ

ন্যাশনাল সেন্টার ফর সার্ভিক্যাল অ্যান্ড ব্রেস্ট ক্যান্সার স্ক্রিনিং সেন্টার-এর প্রকল্প পরিচালক ডা. আশরাফুন নেসা বলেন, “আমরা এখানে বিনামূল্যে ব্রেস্ট স্ক্রিনিং করে থাকি। প্রতিদিন এ সেন্টারে প্রায় ১ শত জনের ব্রেস্ট স্ক্রিনিং করা হয়। বাড়িতে নিজে কীভাবে এ পরীক্ষা করবেন সেটাও শিখিয়ে দেয়া হয়।”

তিনি আরো বলেন, “সারা দেশে আমাদের ৪৬৪টি সেন্টার রয়েছে। এর মধ্যে ২৭১টি উপজেলা স্বাস্থ্য কপ্লেক্সে এবং বাকিগুলো জেলা সরকারি-বেসরকারি হাসপাতাল, সদর হাসপাতাল এবং মাতৃসদনে রয়েছে। এসব হাসপাতালে একইভাবে বিনামূল্যে ব্রেস্ট স্ক্রিনিং করা হয়। ২০০৫ সাল থেকে চলতি বছর পর্যন্ত আমরা ২২ লাখ ব্রেস্ট স্ক্রিনিং করেছি। এর মধ্যে ৩৫ হাজাররের মতো পজিটিভ পেয়েছি।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সার্জারি বিভাগের সহকারি অধ্যাপক ডা. সাদিয়া আফরিন তানি বলেন, “এখানে প্রতিদিন ৬০-৭০ জনের ব্রেস্ট স্ক্রিনিং করা হয়। কেউ পজেটিভ হলে তাকে সার্জারি বিভাগে চিকিৎসা দেয়া হয়। সরকার নির্ধারিত স্বল্প মূল্যে পরীক্ষাগুলো করা হয়।

রেডিও থেরাপি ও কেমো থেরাপিও খুবই কম মূল্যে দেয়া হয়। অপারেশন বিনা মূল্যে করা হয়। এখানে চিকিৎসা নিয়ে অনেকেই সুস্থ্য হয়েছেন এবং ভালো আছেন। সারা দেশে সরকারি হাসপাতালগুলোতে একইভাবে ব্রেস্ট ক্যান্সারের স্ক্রিনিং এবং কম মূল্যে চিকিৎসা রয়েছে।

ব্রেস্ট টিউমার বিশেষজ্ঞ রংপুর

ইংল্যান্ডের সরকারি হাসপাতালে “স্পেশালিস্ট কনসালটেন্ড অব ব্রেস্ট ক্যান্সার” পদে কর্মরত বাংলাদেশি চিকিৎসক ডা. তাসমিয়া তাহমিদ প্রত্যেক মাসে লালমাটিয়ায় ঢাকা নবজাতক শিশু হাসপাতালের “তাসমিয়া তাহমিদ ব্রেস্ট ক্যান্সার সেন্টার”-এ প্রত্যেক মাসে ৭ দিন রোগী দেখেন। তিনি বলেন, “এটা নির্মূলযোগ্য রোগ। শুরুতে ধরা পড়লে এবং সঠিক চিকিৎসা হলে শতভাগই ভালো হয়ে যায়।”

তিনি আরো বলেন, “ইংল্যান্ডের মতো মান সম্পন্ন ব্রেস্ট ক্যান্সারের চিকিৎসা এখানে হয়। কম মূল্যে চিকিৎসা করছি। চিকিৎসার পুরো প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে ৭-৮ মাসে ৫-৬ লাখ টাকা খরচ হয়। ইংল্যান্ড বা অন্য কোনো উন্নত দেশে এ মানের চিকিৎসা (অন্যান্য খরচ ছাড়া শুধুমাত্র চিকিৎসা যেমন- সার্জারি, থেরাপি ও অন্যান্য পরীক্ষা ) পেতে দশগুণ খরচ হয়। অর্থনৈতিকভাবে যারা দুর্বল তাদের জন্য বিভিন্ন পরীক্ষা, কনসালটেশন ফি ইত্যাদি কম নেয়া হয়।

বিশেষজ্ঞদের মতে ব্রেস্ট ক্যান্সারের ঝুঁকি এড়াতে প্রত্যেক মাসে পিরিয়ড শেষ হওয়ার পরদিন নিজে নিজে ব্রেস্ট পরীক্ষা করা প্রয়োজন। চল্লিশ বছরের কম বয়সীদের বছরে একবার এবং চল্লিশোর্ধদের বছরে দুইবার চিকিসকের মাধ্যমে তা পরীক্ষা করা প্রয়োজন। তাহলে সহজেই এ ক্যান্সারের ঝুঁকি রুখে দেয়া সম্ভব।

ব্রেস্ট টিউমার বিশেষজ্ঞ চট্টগ্রাম

ক্যান্সারের বিষয়ে তথ্য জানতে তারা একটি মোবাইল অ্যাপ তৈরি করেছেন। এর মাধ্যমে ঘরে বসেই প্রশ্নের জবাব দিয়ে রোগীরা নিজেদের রোগের তথ্য জানাতে পারে। ওই তথ্য তাদের সার্ভারে যাওয়ার পর কারও খারাপ কিছু দেখা গেলে ব্যথা প্রশমনে তারা উদ্যোগ নিতে যান।

“এটার জন্য মাসে খরচ পড়ে প্রায় এক হাজার টাকা। কিন্তু রোগীরা বলেন, তাদের কাছে কোনো টাকা নেই। কারণ এর মধ্যেই তারা ব্যয়বহুল সিটি স্ক্যান, পেট সিটি স্ক্যানসহ অন্তত ২০ ধরণের অপ্রয়োজনীয় রক্ত পরীক্ষা করে সব টাকা খরচ করে ফেলেছেন।

“বাংলাদেশে বিরাজমান থেরাপির সুবিবেচনামূলক ব্যবহারের ঘাটতি রয়েছে।”

হৃদরোগের চিকিৎসায় হার্ট ফাউন্ডেশন ও ডায়াবেটিসের জন্য বারডেমের মতো ক্যান্সারের চিকিৎসার ক্ষেত্রেও সরকারের পক্ষ থেকে এ ধরনের ব্যবস্থা তৈরির পরামর্শ দেন তিনি।

বাংলাদেশে ক্যান্সারে আক্রান্ত নারীদের মধ্যে বেশিরভাগই স্তন ক্যান্সারের রোগী। এই রোগের প্রকৃত সংখ্যা কত- তা নিয়ে জাতীয় পর্যায়ে কোনো তথ্য নেই।

তবে প্যারিসভিত্তিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান ইন্টারন্যাশনাল এজেন্সি ফর রিসার্চ অন ক্যান্সারের হিসাবে, বাংলাদেশে প্রতিবছর অন্তত ১৫ হাজার নারী স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত হন।

দেরিতে বিয়ে, দেরিতে সন্তান জন্ম দেওয়া ও শিশুকে মায়ের বুকের দুধ না দেওয়ার প্রবণতাকে স্তন ক্যান্সারের ঘটনা বাড়ার পেছনে অন্যতম কারণ হিসেবে দেখা হয়।

ব্রেস্ট টিউমার হলে করণীয়

বর্তমানে সারা বিশ্বের মহিলাদের কাছেই স্তন ক্যান্সার (breast cancer) একটি আতঙ্কের নাম। আর এর প্রকোপ দিন দিন বেড়েই চলেছে। ইদানীং ক্যানসারের প্রচলিত ওষুধে কাজ হচ্ছে না। প্রচলিত বেশির ভাগ কেমোথেরাপিও এই রোগ নিয়ন্ত্রণ করতে পারছে না। তাই স্তন ক্যান্সার দিনে দিনে আরও চিন্তা বাড়াচ্ছে চিকিৎসকদের।

কিন্তু জানেন কি? দৈনন্দিন কিছু অভ্যাসের ভুলে স্তন ক্যান্সারের (breast cancer) ঝুঁকি অনেকটাই বেড়ে যায়? আসুন জেনে নেওয়া যাক তেমনই ৮টি খারাপ অভ্যাসের কথা, যেগুলো স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি অনেকটাই বাড়িয়ে দেয়।

ঘরের দূর্গন্ধ দূর করতে এয়ার ফ্রেশনারের ব্যবহার দিন দিন জনপ্রিয় হচ্ছে। কিন্তু এতে থাকা প্যাথালেট নামক প্লাস্টিসাইজিং রাসায়নিক যা সুগন্ধকে দীর্ঘস্থায়ী করতে সাহায্য করে, তার সঙ্গে স্তন ক্যান্সারের (breast cancer) সরাসরি সম্পর্ক রয়েছে। এর চেয়ে ফুটন্ত জলেতে এক টুকরো দারচিনি ফেলে দিন। এবার দেখুন, ঘরময় কি সুগন্ধই না ছড়াচ্ছে

আমাদের আর্টিকেল বিষয়ে কারো কোন অভিযোগ বা পরামর্শ থাকলে তা নিচে কমেন্ট এর মাধ্যমে অথবা আমাদেরকে ইমেইলের মাধ্যমে জানাতে পারেন আমাদের আর্টিকেল রাইটিং টিম আপনার অভিযোগ বা পরামর্শ সাদরে গ্রহণ করবে এবং সেই অনুযায়ী পদক্ষেপ নিবে

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments

x
error: Content is protected !!