Saturday, November 26, 2022
HomeQuestionsসমাজ কাকে বলে

সমাজ কাকে বলে

অনলাইন শপ www.Gazivai.com ( গাজী ভাই ডট কম) এর পক্ষ থেকে আজকের আর্টিকেলটিতে আমাদের আলোচনার মূল প্রতিপাদ্য বিষয় হল সমাজ। সমাজ কি,সমাজ কাকে বলে ইত্যাদি বিষয় নিয়ে আলোচনা করব।

আজকের আর্টিকেলে আমাদের আলোচনার বিষয়বস্তু গুলো হল: সমাজ কাকে বলে, সমাজ কাকে বলে in Bangla, সমাজ কাকে বলে উত্তর, সমাজ কাকে বলে ক্লাস ৩, সমাজ কাকে বলে Class 5, সমাজ কাকে বলে ৩ শ্রেণি, সমাজ বিজ্ঞান কাকে বলে, ইত্যাদি।

আমাদের www.gazivai.com ওয়েবসাইট থেকে আপনার প্রয়োজনীয় সকল পণ্য কেনাকাটা করুন। সবথেকে কম দামে পণ্য কিনতে ভিজিট করুন www.gazivai.com

সমাজ কাকে বলে

একাধিক ব্যক্তি একত্র হয়ে লিখিত কিংবা অলিখিত নিয়ম-কানুন তৈরি করে; এরকম একত্র বসবাসের অবস্থাকে সমাজ বলে।সমাজ বলতে মূলত এমন এক ব্যবস্থা বোঝায়, যেখানে একাধিক চরিত্র একত্রে কিছু নিয়ম-কানুন প্রতিষ্ঠা করে একত্রে বসবাসের উপযোগী পরিবেশ গড়ে তোলে। 

সমাজ কাকে বলে

আরো পড়ুনঃ লিংগ মোটা বড় করার মারাল জেল কিনতে ক্লিক – এখনই কিনুন

 মানুষ ছাড়াও ইতর প্রাণীর ক্ষেত্রে সমাজের অস্তিত্ব দেখা যায়, তবে সেখানে মানুষের মতো কাঠামোবদ্ধ সমাজের দৃষ্টান্ত নজরে আসে না।সমাজের মধ্যে যেমন সদস্যদের মধ্যে থাকে পরস্পর সৌহার্দ্য, সহযোগিতা, মমত্ব ; তেমনি তৈরি হতে পারে ঘৃণা, লোভ, জিঘাংসা।

তাই সমাজের মধ্যে শৃংখলা ধরে রাখার স্বার্থে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই অলিখিতভাবে তৈরি হয় কিছু নিয়ম, অধিকাংশ ক্ষেত্রেই যার লঙ্ঘন চরম অসম্মানজনক, এবং সমাজের দৃষ্টিতে শাস্তিযোগ্য। তবে নিঃসন্দেহে সুন্দর ও সুষ্ঠু সমাজ ব্যবস্থার জন্য সৌহার্দ্য, সহযোগিতা একান্ত দরকার।

সমাজ কাকে বলে in Bangla

সমাজ বলতে একদল লোককে বোঝায় যারা একটি নির্দিষ্ট সম্প্রদায়ের মধ্যে বসবাস করেন এবং তারা একই সংস্কৃতি মেনে চলেন।এক কথায় “পরস্পর নির্ভরশীল জনগোষ্ঠীকে সমাজ বলে”। বিস্তৃত আকারে, সমাজ হলো আমাদের চারপাশের মানুষ এবং প্রতিষ্ঠান, আমাদের ধর্মীয় বিশ্বাস ও সাংস্কৃতিক ধারনা নিয়ে গঠিত হয়।

সমাজ কাকে বলে

আরো পড়ুনঃ মেয়েদের যোনি টাইট করার ক্রিম কিনতে ক্লিক – এখনই কিনুন

সমাজ এমন একটি গ্রুপের লোকদের বর্ণনা করে যাঁরা একটি নির্দিষ্ট ভৌগলিক অঞ্চলে থাকেন এবং যারা একে অপরের সাথে যোগাযোগ করে এবং একই সংস্কৃতি ভাগ করে নেন। সমাজ এমন লোকদের সমন্বয়ে গঠিত হয় যারা পারস্পরিক সুবিধার মাধ্যমে একসাথে কাজ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

“সমাজ বলতে আমরা সেই জনসাধারণকে বুঝি যারা সংঘবদ্ধভাবে কোনাে সাধারণ উদ্দেশ্য সাধনের জন্য মিলিত হয়েছে”  —সমাজবিজ্ঞানী গিডিংস

“সমাজ মানুষের বহুবিধ সম্পর্কের এক বিচিত্র রূপ” — ম্যাকাইভার

”সমাজের নানা বিষয় নিয়ে প্রথমে বিজ্ঞানভিত্তিক অধ্যয়ন করেন ইবনে খালদুন”

“সমাজ হলাে সামাজিক সম্পর্কের নিয়ন্ত্রণে ব্যক্তিবর্গের সাধারণ পরিচিত” —সমাজবিজ্ঞানী কিম্বল ইয়ং

সমাজের ব্যাপ্তি ছোট পর্যায়েও হতে পারে আবার বড়ও হতে পারে, এর কোনো নির্দিষ্ট সীমা নেই।

সমাজ কাকে বলে উত্তর

সমাজের প্রথম ও প্রধান উপাদান হলো মানুষ। সমাজের আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হলো পরিবার। আর অনেকগুলি পরিবার নিয়েই সমাজ তৈরি হয়। সমাজের মানুষের বসবাসের সুবিধার জন্য গড়ে উঠে স্কুল-কলেজ, মসজিদ, মন্দির, ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান ও অন্যান্য সামাজিক প্রতিষ্ঠান ইত্যাদি।

সমাজ কাকে বলে

আরো পড়ুনঃ ২০ মিনিট সেক্স করার মেজিক কনডম কিনতে ক্লিক করুন – এখনই কিনুন

আমরা জানি, সমাজ খুবই গুরুত্বপূর্ণ কারণ এটি আমাদেরকে বিশ্বের উন্নতির জন্য একত্রে কাজ করার একটি ব্যবস্থা এবং একটি প্ল্যাটফর্ম সরবরাহ করে। সমাজের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় আমরা আমাদের জীবনযাত্রা ও সামাজিক অবস্থার উন্নতি করতে সক্ষম হয়েছি।

আমরা সম্মিলিত সামাজিক প্রচেষ্টার কারণে এগিয়ে চলেছি। তাছাড়া, সমাজে সামাজিক বিশ্বাস, নিয়ম এবং সংখ্যাগরিষ্ঠ নিয়ম রয়েছে যা মানুষকে কীভাবে আচরণ করা উচিত ও অনুচিত তা নির্ধারণ করতে সাহায্য করে।

সমাজ কিছু সুনির্ধারিত নিয়ম কানুন এর উপর ভিত্তি করে গড়ে উঠে, যার ফলে সেখানে মানুষ সহজেই বসবাস করতে পারে, একে অপরের বিপদে-আপদে এগিয়ে যায়। তাই বলা যায় সমাজ হলো সুগঠিত ও নিয়মভিত্তিক।

আরো পড়ুন মেয়েদের নেট বা জর্জেট ব্রা কিনতে ক্লিক করুন – এখনই কিনুন

আরো পড়ুন মেয়েদের ৩ পিস জাইংগা কিনতে ক্লিক করুন – এখনই কিনুন

আরো পড়ুনঃ মেয়েদের সাইজের স্পোর্টস ব্রা কিনতে ক্লিক – এখনই কিনুন

আরো পড়ুনঃ মেয়েদের  ফোম কাপ ব্রা সরাসরি কিনতে ক্লিক – এখনই কিনুন

আরো পড়ুনঃ মেয়েদের সুতি স্পোর্টস ব্রা সরাসরি কিনতে ক্লিক  – এখনই কিনুন

আরো পড়ুন মেয়েদের সেক্সি বিকিনি ব্রা কিনতে ক্লিক করুন – এখনই কিনুন

আরো পড়ুনঃ মেয়েদের নাইট ড্রেস সরাসরি কিনতে ক্লিক করুন – এখনই কিনুন

আরো পড়ুনঃ ৩ পাট কুচি বোরকা সরাসরি কিনতে ক্লিক করুন – এখনই কিনুন

আরো পড়ুনঃ  ২ পাট কুচি বোরকা সরাসরি কিনতে ক্লিক করুন – এখনই কিনুন

আরো পড়ুনঃ  খিমার বুরকা সরাসরি কিনতে ক্লিক করুন – এখনই কিনুন

একটি নির্দিষ্ট অঞ্চলের জনগোষ্ঠী বড় হয়ে কি করবে বা না করবে, তাদের আচার-আচরণ কেমন হবে? এসব কিছু নির্ধারণ করে তারা কোন সমাজে বড় হচ্ছে। তাই প্রত্যেকের উচিত তাদের বসবাসরত সমাজকে একটি আদর্শ সমাজ হিসেবে গড়ে তোলা।

সমাজ কাকে বলে ক্লাস ৩

সমাজের স্পষ্ট বৈশিষ্ট্য পরিলক্ষিত হয়।

সেগুলো হল-

  • সমাজ প্রকৃতপক্ষে মানুষের সমন্বয়েই গঠিত হয়।
  • প্রতিটি মানুষের উপর সমাজ একান্তভাবে নির্ভরশীল।
  • সমাজের প্রতিটা স্তর একটি অপরটির উপর সম্পূর্ণভাবে নির্ভরশীল।
  • সমাজে শ্রম বিভাজন এবং দায়িত্ব বিভাজনের মাধ্যমেই লক্ষ্য সম্পাদিত করা হয়।
  • সমাজে একতা ও সহযোগিতার অনুভূতি আছে। এটি কমবেশি একটি স্থায়ী সমিতি।
  • সমাজ চির-প্রগতিশীল ও সমাজ একটি নিয়ন্ত্রিত ও নিয়মমাফিক চলতে থাকা গঠন।
  • সামাজিক ঐক্য সাধনের মাধ্যমে ও সমবেত উদ্যোগের দ্বারাই গোষ্ঠীর ইচ্ছা ও স্বার্থপূরণ বাস্তবায়িত হয়।
  • সমাজের সদস্যরা পারস্পরিক সহযোগিতার ভাব পোষণ করে থাকে ও সাধারণ স্বার্থ ভাগ করে নেয়ার প্রবণতা রাখে।
  • এই সমাজ বহু সাদৃশ্য ও বৈসাদৃশ্য নিয়ে গঠিত। সাদৃশ্য যেমন, প্রয়োজন, আদর্শ মান ও কার্যক্রম আর বৈসাদৃশ্য যেমন, মনোভাব, চেহারা, প্রতিভা ও ব্যক্তিত্ব সবকিছুই সমাজের অঙ্গ হিসেবে পরিচিত।
  • মানুষদের মধ্যে সাদৃশ্য বা বৈসাদৃশ্য রয়েছে বলেই সভ্যতার পরিবর্তনশীলতা রয়েছে।
  • তা নাহলে সমাজ ও সংস্কৃতি সমস্তটাই এক জায়গাতে থমকে থাকতো।
  • সমাজের ধারণ বিমূর্ত, কারণ সামাজিক সম্পর্কগুলোর অস্তিত কল্পনাতে অনুভব করা গেলেও তা চোখে দেখা বা ছুঁয়ে দেখা সম্ভবপর নয়।
  • পারস্পরিক সচেতনতা, ক্রমাগত পারস্পরিক সচেতনতা, এবং সদস্যদের সাথে আন্তঃসম্পর্ক বজায় রাখার মাধ্যমেই সমাজ পরিচালিত হয়ে থাকে।
  • সহযোগিতা ও দ্বন্দ উভয়ই সমাজকে প্রভাবিত করে থাকে। মানুষদের মধ্যে সহযোগিতা ও দ্বন্দ আছে বলেই সমাজের পরিচালনার ক্ষেত্রে গতি রয়েছে।
  • কোনো একজন মানুষ সহযোগিতা ছাড়া এক সমাজের পরিচালনায় অপারোগ।

সমাজ কাকে বলে Class 5

কোনো জনগোষ্ঠীর সাধারণ বংশ, উপজাতীয় সখ্যতা, পারিবারিক সুবিধা বা সামঞ্জস্যতার কারণেই তারা একই সমাজের অন্তর্ভুক্ত হয়ে থাকে।অনুরূপতার অর্থই হল পারস্পরিক সাদৃশ্যতা। আর এই সাদৃশ্যতা থেকেই তৈরী হয় একটি সমাজ।

আরও পড়ুন:  সানি লিওনের এক্সপ্রেস ভিডিও

আরও পড়ুন: চেহারা সুন্দর করার দোয়া

আরও পড়ুন: ভার্জিন মেয়ে চেনার উপায় ছবি সহ

আরও পড়ুন: মালয়েশিয়া টু বাংলাদেশ বিমান ভাড়া কত

আরও পড়ুন: সর্দির ট্যাবলেট ১০ টি ভালো ঔষধ

আরও পড়ুন: মাথা ব্যথার ১০ টি ঔষধের নামের তালিকা

আরও পড়ুন: বড় ভাইকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা ? বড় ভাইকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা স্ট্যাটাস

আরও পড়ুন: লিংগ মোটা করার উপায়

ম্যাকইভার বলেছেন যে আত্মতা, ঘনিষ্ঠতা ও সম্পর্কের গভীরতা নির্ভর করে পরস্পর বোঝাপড়ার মাধ্যমে।আর এই বোঝাপড়া তৈরী করতে গেলে অনুরূপটা একান্তই প্রয়োজনীয় একটি উপাদান সমাজের যে কোনো জনগোষ্ঠীর কাছে।গোষ্ঠীর অনুভূতিগুলোকে দৃঢ়ভাবে উদ্দীপিত করতে ও সেই গোষ্ঠীর স্ত্রী, পুরুষ ও শিশুদের একত্রিত করতে অনুরূপটা বেশ একটা উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করে।পারস্পরিকতা তৈরী করতে অনুরূপটা বেশ গুরুত্বপূর্ণ।

সামাজিক সংগঠনের জন্যে অনুরূপতার পাশাপাশি বৈচিত্রতাও একান্ত প্রয়োজনীয় উপাদান। সমাজ যেহেতু অনেকগুলো পরিবার নিয়ে গঠিত, সেহেতু প্রতটা পরিবারের মহিলা ও পুরুষের আলাদা জৈবিক বৈচিত্রও বিদ্যমান রয়েছে।

অন্যদিকে, সমাজের অর্থনৈতিক কাঠামো বিভক্ত হয় শ্রম বিভাজনের মাধ্যমে। আর অর্থনৈতিক কাঠামো সম্পূর্ণভাবে নির্ভর করে মানুষের জীবিকা ও কর্মকান্ডের উপর। প্রতিটি মানুষের স্বভাব, প্রকৃতি, ব্যবহার, প্রতিভা, সবকিছুই একে অপরের থেকে আলাদা।

সমাজ কাকে বলে ৩ শ্রেণি

তাদের প্রত্যেকের চিন্তাভাবনা, ভাবাদর্শ ও দৃষ্টিভঙ্গি অনেকসময়ই আলাদা হয়ে থাকে।আর, তাদের এই ভিন্নমত পোষণের জন্যেই সমাজ সবসময় চির গতিশীল থাকে।প্রতিটা মানুষ তাদের স্বার্থ, সামর্থ্য, যোগ্যতা এবং প্রবণতার ভিত্তিতে সমাজের সংগঠন আরও মজবুত করে তোলে।

তবে, প্রতিটা মানুষের পৃথক চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য কখনই দ্বন্দ্বের উদ্ভব করে না। একটা সমাজকে সঠিকভাবে পরিচালনা করতে কিছু বৈসাদৃশ্যতা অবশ্যই থাকতে হবে।প্রতিটা মানুষ একই রকম হলে তাদের সামাজিক সম্পর্ক অত্যন্তই সীমিত হয়ে যেত। তাদের মধ্যে পারস্পরিকতা ও আদান-প্রদান অতিরিক্ত পরিমাণে কমে যেত।

বৈসাদৃশ্য অনুপস্থিতি মানুষের জীবনে একঘেয়েমি ও আগ্রহহীনতা তৈরী করতে পারে। আমরা কখনোই এমন একটি সমাজের কথা ভাবতে পারিনা, যেখানে সকলেই প্রাপ্তবয়স্ক, বা সকলেই যুবক কিংবা সকলেই বৃদ্ধ।সমাজ বিশৃঙ্খলতার মুখোমুখি হলে, তবেই সমাজের পার্থ্যকের  অবদান উপলব্ধি করা সম্ভব।

সমাজ গঠনের ক্ষেত্রে মানুষের পারস্পরিক সহযোগিতাও অনেকটা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। সহযোগিতা ছাড়া কোনো সমাজই চলতে পারে না।একই সমাজের অন্তর্গত বিভিন্ন মানুষেরা যদি একে অপরকে নিজেদের লক্ষ্যসাধনে সহযোগিতা না করে, তাহলে তাদের পক্ষে একটা সুস্থ, স্বাভাবিক সমাজ গঠন কখনোই সম্ভব হবে না।

এছাড়াও, কোনো ব্যক্তিও কখনোই সুখী ও আরামপ্রদ জীবন যাপন করতে পারে না।সহযোগিতা সমাজের অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে সাহায্য করে। সমাজবিজ্ঞানীদের মতে, মানুষেরা যখন তাদের সাধারণ স্বার্থ সম্পর্কে অবহিত হয়, তখনই তারা পরস্পর সহযোগিতার জন্যে এগিয়ে আসে।এছাড়াও, পি. গিসবার্ট বলেছেন যে সহযোগিতা হল সামাজিক জীবনের একদম প্রাথমিক প্রক্রিয়া, যা ছাড়া সমাজ গঠন একেবারেই অসম্ভব। 

সমাজ বিজ্ঞান কাকে বলে

সমাজ পরিচালিত হয় পরস্পর নির্ভরশীলতার উপর নির্ভর করে। এই গুরুত্বপূর্ণ উপাদানটিও সমাজ গঠনের ক্ষেত্রে অপরিহার্য ভূমিকা পালন করে। মানুষ কখনোই এককভাবে নিজেদের বাসনা পূরণ করতে পারে না।মানুষের পক্ষে একা বসবাস করাও অসম্ভব। বেঁচে থাকার জন্যে মানুষকে অবশ্যই অন্যের উপর কোনো না কোনোভাবে নির্ভরশীল থাকতে হয়। 

উদাহরণস্বরূপ বলা যায়, পরিবার বা সমাজের সদস্য সংখ্যা বৃদ্ধির ক্ষেত্রে স্ত্রী ও পুরুষ দুই লিঙ্গের মানুষই একে ওপরের উপর নির্ভরশীল।এই ক্ষেত্রে সমাজ নির্ভর করে জৈবিক পরস্পর নির্ভরতার উপর। এই দুই লিঙ্গের মানুষরা পরস্পরের উপর সম্পূর্ণভাবে নির্ভরশীল।

এছাড়াও, বর্তমানে দেশ থেকে শুরু করে মহাদেশগুলোও একে অপরের উপর প্রত্যক্ষ কিংবা পরোক্ষভাবে নির্ভর করে। এমনকি, সম্প্রদায়, সামাজিক গোষ্ঠী এবং জাতিগুলিও পরস্পর উপর নির্ভর করে রয়েছে।সমাজের প্রধান উদ্দেশ্য হল মানুষদের একটি সংগঠিত গোষ্ঠীতে পরিণত করা।যাতে, তারা ভিন্ন উপায়ে পরস্পরকে সমর্থন করতে পারে।

কঠিন পরিস্থিতির সম্মুখীন হলে, তবেই মানুষ সমাজের গুরুত্ব উপলব্ধি করে থাকে।একটি সামাজিক গোষ্ঠীর সদস্য হওয়ায়, মানুষ তাদের প্রয়োজনে সমাজ থেকে প্রাপ্ত শারীরিক, মানসিক, আর্থিক বা চিকিৎসা সহজেই লাভ করতে পারে।

একটি সমাজ নেটওয়ার্কের মতো কাজ করে। এই নেটওয়ার্কগুলো মানুষের মধ্যে সুসম্পর্ক স্থাপন করতে সাহায্য করে।আর এই সম্পর্কগুলোই প্রত্যেক ব্যক্তির মধ্যে সামাজিক যোগাযোগ তৈরী করতে সহায়তা করে। সমাজের মাধ্যমেই বিভিন্ন জনগোষ্ঠীর লোকেরা নিজেদের মধ্যে যোগাযোগ সাধন করতে সক্ষম হয়।

এর ফলে, সারা বিশ্বে একটি শক্তিশালী সামাজিক বন্ধনের সৃষ্টি হয়।সমাজ পরিবার ব্যবস্থা ও সগঠিত সম্পর্ক স্থাপনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। যা যেকোনো সমাজ গঠনের প্রাণবিন্দু হিসেবে কাজ করে।

আমাদের আর্টিকেল সম্বন্ধে কারো কোন অভিযোগ বা পরামর্শ থাকলে নিচে কমেন্ট করে জানাতে পারেন ।আপনার কথা আমরা সাদরে গ্রহণ করব।

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments

x
error: Content is protected !!