Thursday, August 11, 2022
HomeQuestionsদর্শন কাকে বলে

দর্শন কাকে বলে

অনলাইন শপ www.Gazivai.com ( গাজী ভাই ডট কম) এর পক্ষ থেকে আজকের আর্টিকেলটিতে আমাদের আলোচনার মূল প্রতিপাদ্য বিষয় হলো দর্শন। দর্শন কি, দর্শন কাকে বলে ইত্যাদি বিষয় নিয়ে আলোচনা করব।

আজকের আর্টিকেলে আমাদের আলোচনার বিষয়বস্তু গুলো হল: দর্শন কাকে বলে, দর্শন কাকে বলে বাংলা, ভারতীয় দর্শন কাকে বলে, আস্তিক দর্শন কাকে বলে, সমাজ দর্শন কাকে বলে, শিক্ষা দর্শন কাকে বলে, ন্যায় দর্শন কাকে বলে, যোগ্য দর্শন কাকে বলে, লোকায়ত দর্শন কাকে বলে ইত্যাদি। বিস্তারিত জানতে নিচের লেখাগুলো পুরোটা পড়ুন।

আমাদের www.gazivai.com ওয়েবসাইট থেকে আপনার প্রয়োজনীয় সকল পণ্য কেনাকাটা করুন। সবথেকে কম দামে পণ্য কিনতে ভিজিট করুন www.gazivai.com

দর্শন কাকে বলে

জীবন ও জগৎকে ঘিরে উদ্ভূত মৌলিক সমস্যাবলির যৌক্তিক অনুসন্ধান এবং চলার পথে তার যৌক্তিক প্রতিফলন ঘটানোকে দর্শন বলে।

দর্শন কাকে বলে

আরো পড়ুনঃ চুল কাটার মেশিন সরাসরি কিনতে ক্লিক – এখনই কিনুন

গ্রিক দার্শনিক প্লেটোর মতে, “চিরন্তন এবং বস্তুর মূল প্রকৃতির জ্ঞান অর্জন করাই দর্শনের লক্ষ্য”।

অ্যারিস্টটলের মতে, “আদি সত্ত্বার স্বরূপ এবং এ স্বরূপের অঙ্গীভূত যে সব বৈশিষ্ট্য তার অনুসন্ধান করে যে বিজ্ঞান তাই হলাে দর্শন”।

হার্বার্ট স্পেন্সার বলেন, “বিশৃঙ্খল জ্ঞান নিম্নমানের জ্ঞান। বিজ্ঞান হলাে আংশিক একীভূত জ্ঞান। বিভিন্ন বিজ্ঞানের সাধারণ সত্যগুলােকে অন্তর্নিবিষ্ট ও দৃঢ়ীকৃত করার ফলে যে সম্পূর্ণ ঐক্য বা জ্ঞান তাই হলো দর্শন”।

কানিংহাম বলেন, “মানুষ দার্শনিক হবে কি না, তা কোনাে প্রশ্ন নয়; প্রশ্ন হলাে ভালাে এবং মন্দ এই দুই দর্শনের মধ্যে একটিকে নির্বাচন করা”।

শেলিং-এর মতে, “জগৎ ঠিক কি হলে মন একে বুঝতে পারবে এবং মন ঠিক কি হলে জগৎ একে বুঝতে পারবে এটি নির্দিষ্ট করার চেষ্টাই দর্শন”।

আর. জে. হার্স্ট-এর মতে, “জগৎ ও মানব প্রকৃতি সম্পর্কে যেসব নির্দিষ্ট মৌলিক সমস্যা আছে তার যৌক্তিক উত্তর অনুসন্ধানই হচ্ছে দর্শন”।

দর্শন কাকে বলে

আরো পড়ুনঃ ২০ মিনিট সেক্স করার মেজিক কনডম কিনতে ক্লিক করুন – এখনই কিনুন

দর্শন কাকে বলে বাংলা

দর্শন, ইংরেজিতে ফিলোসফি (philosophy) হলো অস্তিত্ব, জ্ঞান, মূল্যবোধ, কারণ, মন এবং ভাষা সম্পর্কে সাধারণ এবং মৌলিক প্রশ্নগুলির অধ্যয়ন।জগৎ, জীবন, মানুষের সমাজ, তার চেতনা এবং জ্ঞানের প্রক্রিয়া প্রভৃতি মৌল বিধানের আলোচনাকেও দর্শন বলা হয়। মানুষের সামাজিক চেতনার বিকাশের একটা পর্যায়েই মাত্র মানুষের পক্ষে বিশ্লেষণী দৃষ্টি নিয়ে জগৎ এবং জীবন সম্পর্কে চিন্তা করা সম্ভব হয়েছে।

আরো পড়ুন মেয়েদের নেট বা জর্জেট ব্রা কিনতে ক্লিক করুন – এখনই কিনুন

আরো পড়ুন মেয়েদের ৩ পিস জাইংগা কিনতে ক্লিক করুন – এখনই কিনুন

আরো পড়ুনঃ মেয়েদের সাইজের স্পোর্টস ব্রা কিনতে ক্লিক – এখনই কিনুন

আরো পড়ুনঃ মেয়েদের  ফোম কাপ ব্রা সরাসরি কিনতে ক্লিক – এখনই কিনুন

আরো পড়ুনঃ মেয়েদের সুতি স্পোর্টস ব্রা সরাসরি কিনতে ক্লিক  – এখনই কিনুন

আরো পড়ুন মেয়েদের সেক্সি বিকিনি ব্রা কিনতে ক্লিক করুন – এখনই কিনুন

আরো পড়ুনঃ মেয়েদের নাইট ড্রেস সরাসরি কিনতে ক্লিক করুন – এখনই কিনুন

আরো পড়ুনঃ ৩ পাট কুচি বোরকা সরাসরি কিনতে ক্লিক করুন – এখনই কিনুন

আরো পড়ুনঃ  ২ পাট কুচি বোরকা সরাসরি কিনতে ক্লিক করুন – এখনই কিনুন

আরো পড়ুনঃ  খিমার বুরকা সরাসরি কিনতে ক্লিক করুন – এখনই কিনুন

মানুষ তার নিজের উদ্ভব মুহূর্ত থেকেই চিন্তার এরূপ ক্ষমতা দেখাতে সক্ষম ছিল না। মানুষের চেতনার বিকাশের একটা স্তরে মানুষ তার পরিবেশ সম্পর্কে চিন্তা করতে আরম্ভ করে। নিজের জীবনকে অধিকতর নিশ্চিত করে রক্ষা করার প্রয়োজনে মানুষ প্রকৃতি জগৎের রহস্য সম্পর্কে জ্ঞান অর্জনের চেষ্টা করে। প্রকৃতি, জগৎ এবং পরবর্তীকালে মানুষের নিজের দেহ এবং চেতনা সম্পর্কেও সে চিন্তা করতে শুরু করে।

আদিকালে বিশ্বজগৎ সম্পর্কে মানুষের জ্ঞানের পরিধি খুব অধিক ছিল না। দর্শনই আদি জ্ঞানের মূল ভাণ্ডার। জগৎ ও জীবনের প্রত্যেকটি সমস্যা মানুষের কাছে প্রশ্নাকারে উত্থাপিত হয়। যে প্রশ্নই উপস্থিত হোক না কেন, মানুষ তার একটা জবাব দিয়ে প্রকৃতিকে বশ করার চেষ্টা করেছে।

আরও পড়ুন:  সানি লিওনের এক্সপ্রেস ভিডিও

আরও পড়ুন: চেহারা সুন্দর করার দোয়া

আরও পড়ুন: ভার্জিন মেয়ে চেনার উপায় ছবি সহ

আরও পড়ুন: মালয়েশিয়া টু বাংলাদেশ বিমান ভাড়া কত

আরও পড়ুন: সর্দির ট্যাবলেট ১০ টি ভালো ঔষধ

আরও পড়ুন: মাথা ব্যথার ১০ টি ঔষধের নামের তালিকা

আরও পড়ুন: বড় ভাইকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা ? বড় ভাইকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা স্ট্যাটাস

আরও পড়ুন: লিংগ মোটা করার উপায়

তাই আদি দর্শন একদিকে যেমন সমস্ত জ্ঞানের ভাণ্ডার তেমনি আবার তার মধ্যে সমস্যার ক্ষেত্রে বৈজ্ঞানিক পরীক্ষা নিরীক্ষার ভিত্তিতে সমাধানের বদলে কাল্পনিক সমাধানের সাক্ষাৎ অধিক মেলে। কালক্রমে মানুষের অভিজ্ঞতা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে পুরাতন দার্শনিক কল্পনা বাস্তব জীবনে ভিত্তিহীন প্রমাণিত হলে তার স্থানে অধিকতর সঠিক সমাধান আবিষ্কৃত হতে থাকে। এইভাবে অধিকতর বাস্তব এবং সুনির্দিষ্ট আলোচনা ভিত্তিতে জ্ঞানের বিভিন্ন শাখা বিকশিত হতে থাকে।

ভারতীয় দর্শন কাকে বলে

ভারতীয় দর্শন হল দার্শনিক চিন্তা এক ভারতীয় ও ভারতীয় উপমহাদেশের ঐতিহ্যগুলির এক মিলিত প্রকাশ যেগুলির মধ্যে ছিল হিন্দু দর্শন, বৌদ্ধ দর্শন ও জৈন দর্শন নামে পরিচিত।

পূর্বে প্রকৃতি, পদার্থ, সমাজ, চেতনা, যুক্তি, অর্থনীতি, ধর্ম সবই দর্শনের অন্তর্ভুক্ত ছিল। কালক্রমে তাদের প্রত্যেকে এক একটি ভিন্ন বিজ্ঞান বা আলোচনার শাখায় রূপান্তরিত হতে থাকে। এই বিকাশের পরিণামে বর্তমানে দর্শন বলতে কেবলমাত্র কল্পনার উপর নির্ভরশীল কোনো বিষয় আর অবশিষ্ট নেই। তাই দর্শনের প্রাচীন সংজ্ঞা এবং তার বর্তমান পরিস্থিতি এক নয়।

সুনির্দিষ্টভাবে মানুষের জ্ঞান বিকশিত হওয়ার পরেও দর্শনকে অনেকে কল্পনার মধ্যে আবদ্ধ করার চেষ্টা করেছেন। এই প্রয়াসে দর্শন জীবনের বাস্তব সমস্যার সঙ্গে সম্পর্কশুন্য হয়ে পড়ে। যেখানে প্রাচীনকালে জীবনের সমস্যাই দর্শনের বিকাশ ঘটিয়েছে সেখানে আধুনিককালের এরূপ প্রয়াস দর্শনকে জীবনের সঙ্গে সম্পর্কশুন্য অবাস্তব কল্পনায় পর্যবসিত করেছে।

দর্শনের এই সংকটের সুস্পষ্ট নির্দেশ দেন ঊনবিংশ শতকে কার্ল মার্কস। কার্ল মার্কস এবং ফ্রিডরিখ এঙ্গেলস দর্শনকে জীবনের সঙ্গে যুক্ত করে বলেন যে, দর্শন হবে জীবন এবং জগৎকে বৈজ্ঞানিক এবং সামগ্রিক দৃষ্টিকোণ থেকে দেখা। দর্শন হবে বৃহত্তম সংখ্যক মানুষের স্বার্থে জগৎ এবং সমাজকে পরিবর্তিত করার ভাবগত হাতিয়ার। দর্শন অবাস্তব কল্পনা নয়। দর্শন জগৎ ও জীবনের মৌলিক বিধানের বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা। আর এই ব্যাখ্যারই অপরনাম হচ্ছে দ্বন্দ্বমূলক বস্তুবাদের তত্ত্ব।

আস্তিক দর্শন কাকে বলে

ছয়টি পদ্ধতির তালিকা বা ষড়দর্শন বেদ কে জ্ঞানের নির্ভরযোগ্য উৎস এবং প্রামাণিক উৎস হিসেবে বিবেচনা করে।এগুলি হল ন্যায়, বৈশেষিক,  সাংখ্য, যোগ, মীমাংসা এবং হিন্দুধর্মের বেদান্ত দর্শন, এবং এগুলিকে আস্তিক দর্শন হিসাবে শ্রেণীবদ্ধ করা হয়েছে:

  1. ন্যায়, যুক্তিবিদ্যার দর্শন
  2. বৈশেষিক, পরমাণুবিদ্যার দর্শন
  3. সাংখ্য, গণনা দর্শন
  4. যোগ, পতঞ্জলির দর্শন (যা সাংখ্যের অধিবিদ্যা অনুমান করে)
  5. মীমাংসা, বৈদিক ব্যাখ্যার ঐতিহ্য
  6. বেদান্ত বা উত্তর মীমাংসা, উপনিষদিক ঐতিহ্য।

ঐতিহাসিক ও ধারণাগত উভয় কারণেই এগুলি প্রায়শই তিনটি দলে মিলিত হয়: ন্যায়-বৈশেষিক, সাংখ্য-যোগ, এবং মীমাংসা-বেদান্ত।

সমাজ দর্শন কাকে বলে

সামাজিক দর্শন হলো নৈতিক মূল্যবোধ বিবেচনায় সামাজিক আচরণ, সমাজ ও সামাজিক প্রতিষ্ঠানের ব্যাখ্যা ও অধ্যয়ন। সামাজিক দার্শনিকগণ বর্তমানে রাজনৈতিক, আইনগত, নৈতিক ও সংস্কৃতি সংক্রান্ত প্রশ্নগুলো, উপন্যাস তাত্ত্বিক কাঠামো উন্নয়নকে সামাজিক প্রেক্ষাপটে ব্যাখ্যার উপর গুরুত্বারোপ করছেন।

অধিকাংশ সময়ই সামাজিক দর্শন ও নৈতিক ও মূল্যবোধ তত্ত্বের উত্থাপিত প্রশ্নগুলোর মধ্যে সাদৃশ্য খুঁজে পাওয়া যায়। সামাজিক দর্শনের অন্যান্য রকমের মধ্যে রয়েছে রাজনেতিক দর্শন, এবং আইনশাস্ত্র, যেটি বৃহৎভাবে রাষ্ট্র ও সরকারের সমাজগুলোর সাথে সংশ্লিষ্ট।

সামাজিক দর্শন, নীতিশাস্ত্র এবং রাজনৈতিক দর্শন সগুলোই সামাজিক বিজ্ঞানের অন্যান্য বিভাগের সাথে অন্তরঙ্গ সংযোগ রাখে। তার বদলে সামাজিক বিজ্ঞানের কেন্দ্রীয় আগ্রহের বিষয় বস্তু সামাজিক বিজ্ঞানসম্পর্কিত দর্শন

দর্শন যেমন মানুষের আদি জ্ঞানভাণ্ডার, তেমনি তার ইতিহাস জ্ঞানের যে কোনো শাখার চেয়ে প্রাচীন। প্রাচীন গ্রিস, ভারত ও চীনে দর্শনের বিস্ময়কর বিকাশের সাক্ষাৎ পাওয়া যায়। কিন্তু দর্শনের বিকাশকে দেশ বা জনগোষ্ঠী হিসেবে বিভক্ত করার কোনো বিশেষ তাৎপর্য নেই। জীবন ও জগৎের সমস্যা নিয়ে চিন্তাই হচ্ছে দর্শন।

শিক্ষা দর্শন কাকে বলে

শিক্ষাদর্শন একটি সামগ্রিক দর্শন যা শিক্ষাকে সুশৃংখল ও সুস্থির অভিমুখী করে তোলে শিখন ব্যবস্থাকে উপলব্ধি করা এবং তার উন্নতি সাধন করা শিক্ষা দর্শনের মৌলিক লক্ষ্য । কোন শিক্ষা ভাবনার বা শিক্ষা তত্ত্বের যে দ্বন্দ্ব ও ভ্রান্তি গুলি আছে সেগুলো দূর করা শিক্ষা দর্শনের অন্যতম কাজ ।

 শিক্ষা হলো দর্শনের পরীক্ষাগার যেখানে সমস্ত দার্শনিক সত্যতার যথার্থতা পরীক্ষিত হয় । তাই দর্শনের কাজ হল জীবনের জন্য প্রয়োজনীয় মৌলিক গুণাবলী নির্দেশনার পথ স্থির করা আর শিক্ষার কাজ হলো সেই পথে চলে জীবনকে উৎকর্ষ থেকে উৎকর্ষতর করে তোলা । একটি মুদ্রার দুই পিঠ হলো শিক্ষা আর দর্শন । দর্শনের পিঠ‌টি হল চিন্তাশীল শিক্ষার পিঠ‌টি হল সক্রিয় ।

সুতরাং পরিশেষে বলা চলে যে শিক্ষা এবং দর্শন দুটি পৃথক বিষয় নয় এটি একত্র করে যে শিক্ষাদর্শন ভাবনা করা হয়েছে সেটি যথার্থ। শিক্ষা পদ্ধতি চারটি মৌলিক বিষয়ের উপর নির্ভর করে: শিক্ষা প্রতিষ্ঠান , শিক্ষক , পাঠক্রম ও শিক্ষার্থী এই চারটি মৌলিক বিষয় নিজেদের মধ্যে অঙ্গাঙ্গিভাবে জড়িত থেকে শিক্ষার লক্ষ্য কে পূর্ণতা দেয় ।আর এই চারটি বিষয়কে একত্রিত করার জন্য প্রয়োজনীয় উপযুক্ত শিক্ষা দর্শনের ।

একটি যথার্থ সমাজদর্শন ই পারে শিক্ষার ধারণা শিক্ষা পরিকল্পনাকে সুশৃংখল করে তুলতে দার্শনিক রীতিনীতি এবং দার্শনিকদের মৌলিক চিন্তার বহিঃপ্রকাশ উচ্চশিক্ষা এই রীতি-নীতি গুলিকে আশ্রয় করে অতীতের সমস্ত সম্পদ ও ঐতিহ্যকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ায় শিক্ষার অন্যতম লক্ষ্য যা দার্শনিক চিন্তা ভাবনা দ্বারাই সম্ভব।

শিক্ষাদর্শন একটি সামগ্রিক দর্শন যা শিক্ষাকে সুশৃংখল ও সুস্থির অভিমুখী করে তোলে শিখন ব্যবস্থাকে উপলব্ধি করা এবং তার উন্নতি সাধন করা শিক্ষা দর্শনের মৌলিক লক্ষ্য । কোন শিক্ষা ভাবনার বা শিক্ষা তত্ত্বের যে দ্বন্দ্ব ও ভ্রান্তি গুলি আছে সেগুলো দূর করা শিক্ষা দর্শনের অন্যতম কাজ । শিক্ষা দর্শন মানুষকে সক্ষম করে তোলে যার দ্বারা সে প্রচ‌লিত ব্যবস্থা ও নীতিগুলির বিরুদ্ধে প্রশ্ন করতে শেখে। শিক্ষাতত্ত্ব গুলির মধ্যে লুকিয়ে থাকা ধারণা উপলব্ধিগুলোকে বাস্তবতা দান করে শিক্ষাকে সময় উপযোগী করে তোলা শিক্ষা দর্শনের অন্যতম কাজ ।

ন্যায় দর্শন কাকে বলে

ন্যায় আক্ষরিক অর্থ বিচার, নিয়ম, পদ্ধতি বা রায়। হিন্দুধর্মের ছয়টি দর্শনের মধ্যে একটি। ভারতীয় দর্শনে এই দর্শনের সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য অবদান ছিল যুক্তি তত্ত্ব, পদ্ধতিবিদ্যা এবং জ্ঞানবিজ্ঞানের উপর তার গ্রন্থগুলির পদ্ধতিগত বিকাশ।

ন্যায় দর্শন জ্ঞানবিজ্ঞান ছয়টি প্রমানের মধ্যে চারটি জ্ঞান অর্জনের নির্ভরযোগ্য মাধ্যম হিসেবে গ্রহণ করে – প্রত্যয় (উপলব্ধি), অনুমান, উপমান (তুলনা ও উপমা) এবং শব্দ (অতীত বা বর্তমান নির্ভরযোগ্য বিশেষজ্ঞদের সাক্ষ্য)। তার অধিবিদ্যায়, ন্যায় দর্শন হিন্দুধর্মের বৈশেষিক দর্শনের কাছাকাছি। এটা ধরে নিয়েছে যে ভুল জ্ঞানের অধীনে ক্রিয়াকলাপ দ্বারা সৃষ্ট ভুলের ফলে মানুষের কষ্ট হয়।এটি বলে, মোক্ষ সঠিক জ্ঞানের মাধ্যমে অর্জিত হয়।

এই ভিত্তি ন্যায়কে জ্ঞানতত্ত্বের সাথে নিজেকে উদ্বিগ্ন করতে পরিচালিত করেছিল, এটি সঠিক জ্ঞান অর্জন এবং ভুল ধারণাগুলি দূর করার নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। মিথ্যা জ্ঞান কেবল নৈয়ায়িকদের অজ্ঞতা নয়, এর মধ্যে রয়েছে বিভ্রম। সঠিক জ্ঞান হচ্ছে নিজের বিভ্রান্তি আবিষ্কার করা এবং তা কাটিয়ে ওঠা, এবং আত্মা, স্ব এবং বাস্তবতার প্রকৃত প্রকৃতি বোঝা

যোগ্য দর্শন কাকে বলে

যোগ দর্শন ৬ মুখ্য আস্তিক হিন্দু দর্শন-এর অন্যতম। প্রাচীন, মধ্যযুগীয় ও আধুনিক সাহিত্যে এটি প্ৰায় কেবলমাত্র ‘যোগ‘ শব্দ দ্বারা অভিহিত। যোগ দর্শন সাংখ্য দর্শন-এর সাথে সম্বন্ধিত। যোগ দর্শন নিজেকে শারীরিক, মানসিক ও আধ্যাত্মিক ভাবে উন্নতির দিকে নেয়ার অধ্যয়নে অন্য সকল ভারতীয় দর্শনকে প্ৰভাবিত করেছে।

লোকায়ত দর্শন কাকে বলে

লোকায়ত দর্শন হলো ভারতীয় দর্শনের একটি বস্তুবাদী শাখা। এটি অধ্যাত্মবাদবিরোধী নিরীশ্বরবাদী ও বস্তুবাদী দর্শন। সাধারণভাবে গুরু বৃহস্পতিকে এই দর্শনশাস্ত্রের প্রবর্তক হিসাবে মনে করা হয়। এই দর্শন কোনো প্রকার প্রত্যাদেশে বিশ্বাসী নয়, ‘প্রমাণ’ই এ-দর্শন অনুসারে যথার্থ জ্ঞানের উৎস।

আমাদের আর্টিকেল সম্বন্ধে কারো কোন অভিযোগ বা পরামর্শ থাকলে নিচে কমেন্ট করে জানাতে পারেন ।আপনার কথা আমরা সাদরে গ্রহণ করব।

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments

Maral gel
Maral gel
x
error: Content is protected !!