Sunday, August 14, 2022
Homelatest newsড্রাইভিং লাইসেন্স হয়েছে কিনা কিভাবে জানবো । driving licence check online

ড্রাইভিং লাইসেন্স হয়েছে কিনা কিভাবে জানবো । driving licence check online

ড্রাইভিং লাইসেন্স হয়েছে কিনা কিভাবে জানবো । driving licence check online আর্টিকেলটিতে আমরা জানবো কিভাবে আপনি চেক করবেন আপনার ড্রাইভিং লাইসেন্স হয়েছে কিনা, এর পাশাপাশি ড্রাইভিং লাইসেন্স করার নানা প্রক্রিয়া ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়ন করার প্রক্রিয়া ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়ন করার জন্য আপনাকে কি কি করতে হবে। এ বিষয়ে নানান তথ্য রয়েছে আজকের আর্টিকেলটি৷

ড্রাইভিং লাইসেন্স সম্পর্কে কোন তথ্য জানেন না বা ড্রাইভিং লাইসেন্স এর সম্পর্কে কোন তথ্য আপনার ভালো জানা নেই। আজকের আর্টিকেলটি থেকে বিস্তারিত এসকল তথ্য আপনি জেনে নিতে পারবেন খুব সহজেই দেরি না করে ড্রাইভিং লাইসেন্স সম্পর্কে নানান তথ্য গুলো জেনে নেই। আপনার প্রশ্ন থাকলে সেটি কমেন্টে অবশ্যই লিখে জানিয়ে দেবেন। আর্টিকেলটিতে যে সকল বিজ্ঞাপন দেয়া থাকবে এগুলো কিনতে চাইলে আমাদের ফোন করে অর্ডার করতে পারবেন।

ড্রাইভিং লাইসেন্স হয়েছে কিনা কিভাবে জানবো

আপনার ড্রাইভিং লাইসেন্স তৈরি হয়েছে কিনা এটি আপনি কিভাবে জানতে পারেন এ নিয়ে অনেকের মধ্যে একটি ধোঁয়াশা তৈরি হয়। আমরা আপনাকে দুটি পদ্ধতি সম্পর্কে বলব পদ্ধতি আপনি অনুসরণ করার মাধ্যমে আপনার ড্রাইভিং লাইসেন্স হয়েছে কিনা এটা জেনে নিতে পারবেন।

ড্রাইভিং লাইসেন্স হয়েছে কিনা কিভাবে জানবো

মেসেজের মাধ্যমে ড্রাইভিং লাইসেন্স চেক করার নিয়ম

মোবাইল ফোনের মেসেজ অপশনে গিয়ে ‘’DL রেফারেন্স নম্বর” টাইপ করুন
মেসেজটি 6969 নম্বরে পাঠিয়ে দিন
ফিরতি মেসেজে চিপযুক্ত স্মার্ট কার্ড ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রস্তুতের বর্তমান অবস্থা জানতে পারবেন
ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্য বায়োমেট্রিক্স সম্পন্ন করার পর বিআরটিএ থেকে আপনাকে এ্যাকনলেজমেন্ট স্লিপ দেওয়া হয় তাতে রেফারেন্স নাম্বার উল্লেখ থাকে।

আরো পড়ুনঃ সানি লিওনের এক্সপ্রেস ভিডিও দেখতে ক্লিক করুন – এখনি দেখুন

অনলাইনে ড্রাইভিং লাইসেন্স হয়েছে কিনা চেক করার নিয়ম

সফটওয়ারের মাধ্যমে আপনি ড্রাইভিং লাইসেন্স টি ডাউনলোড করতে পারেন আর সফটওয়ারের মাধ্যমে ড্রাইভিং লাইসেন্স ডাউনলোড করার জন্য আপনাকে গুগলের প্লে স্টোরে গিয়ে ডাউনলোড করতে হবে এই সফটওয়্যারটি। সফটওয়ারটি আপনি ডাউনলোড করার পর আপনি এখানে আপনার ডি এল নাম্বার সাবমিট করলেই আপনি দেখতে পাবেন ড্রাইভিং লাইসেন্স এর ছবি সহ আপনার কাট।

ড্রাইভিং লাইসেন্স হয়েছে কিনা কিভাবে জানবো
ড্রাইভিং লাইসেন্স হয়েছে কিনা কিভাবে জানবো

এই সফটওয়্যারটিতে আপনি সকল প্রকার তথ্য দেখতে পারবেন যেগুলো আপনি আপনার ড্রাইভিং লাইসেন্স করার সময় দিয়েছিলেন এই অ্যাপসটি আপনি গুগল প্লে স্টোরে পেয়ে যাবে গুগল প্লে স্টোর থেকে এটি নামাতে পারেন খুব সহজেই এজন্য আপনাকে সার্চ করতে হবে DL Checker – অথবা আমাদের দেয়া লিংটিতে গিয়ে সরাসরি এটি ডাউনলোড করে নিতে পারেন.

ড্রাইভিং লাইসেন্স কি

ড্রাইভিং লাইসেন্স হলো একটি সনদপত্র যা দ্বারা আপনি একজন ড্রাইভার হওয়ার সার্টিফিকেট বা যোগ্যতা দেখাতে পারেন, একজন ড্রাইভার তার পেশার জন্য এটি সংগ্রহ করে থাকে তবে আমাদের দেশে নয় সারা পৃথিবীতে যারা ড্রাইভিং পেশায় জড়িত তাদের জন্য ড্রাইভিং লাইসেন্স তৈরি করা একান্ত বাধ্যতামূলক।

আরো পড়ুনঃ ইন্টারনেটে নেকেড ভিডিও দেখা কি জায়েজ জেনে নিন – এখনই জানুন

সাদাসিধে স্মার্টকার্ড হলেও এটির গুরুত্ব অনেক বেশি বিশেষ করে একটি ড্রাইভিং লাইসেন্স থাকলে আপনি বিদেশে ভালো বেতনে চাকরি করতে পারবেন অর্থাৎ বিদেশে ভালো বেতনে ড্রাইভ করতে পারবেন। এছাড়াও আমাদের দেশে ড্রাইভিং লাইসেন্স ব্যতীত আপনি কোন ধরনের গাড়ি চালাতে পারবেন না যদিও চান তাহলে পুলিশ আপনাকে মামলা দিয়ে দেবে তাই আপনি ড্রাইভিং লাইসেন্সের বৈধতা পেতে যে পন্থাটি অর্জন করে থাকেন সেটি হচ্ছে ড্রাইভিং লাইসেন্স।

ড্রাইভিং লাইসেন্স এর জন্য কি কি কাগজ লাগে

বৈধ উপায়ে ড্রাইভিং লাইসেন্স পাওয়ার জন্য আপনাকে প্রথমে গাড়ি চালানো শিখতে হবে আর গাড়ি চালানোর আপনি যদি পুরোপুরি পারদর্শী হয়ে ওঠেন তাহলে আপনি ড্রাইভিং লাইসেন্স পাওয়ার জন্য আবেদন করতে পারবেন। মনে রাখবেন আপনি গাড়ি চালাতে পারদর্শী না হয় ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্য আবেদন করতে পারবেন কিন্তু বৈধ উপায়ে আপনি যখন পরীক্ষা দিতে যাবেন তখন কিন্তু ড্রাইভিং লাইসেন্স এর পরীক্ষায় অকৃতকার্য হবেন।

তাই আপনি যখন বৈধ উপায়ে ড্রাইভিং লাইসেন্স করতে যাবেন তখন আপনি পুরোপুরি ড্রাইভিং সিখে নেয়ার পর আপনাকে যে সকল কাগজ গুলো সাবমিট করার বা কাগজগুলো দরকার পড়বে

আরো পড়ুনঃ প্রান কোম্পানি চাকরি ? মাসে বেতন কত

জাতীয় পরিচয় পত্রের ফটোকপি
রেজিস্টার্ড ডাক্তার কর্তৃক মেডিকেল কর্তৃক
নির্ধারিত ফর্মে আবেদন
নির্ধারিত ফি জমাদান করার রশিদ
তিন কপি স্ট্যাম্প ও এক কপি পাসপোর্ট সাইজ রঙিন ছবি
নির্ধারিত ফি ১ ক্যাটাগরি- ৩৪৫/- ও ২ ক্যাটাগরি- ৫১৮/- টাকা

ড্রাইভিং লাইসেন্স এর জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র

ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র আপনাকে সংগ্রহ করতে হবে আপনার নিজস্ব যে সকল কাগজপত্র রয়েছে এগুলোর মধ্যে কি কি দরকার ইতিমধ্যে উল্লেখ করেছি ড্রাইভিং লাইসেন্সের আবেদন করার সময় অবশ্যই এগুলো আপনার সাথে রাখবেন, আপনি যে উপায়ে ড্রাইভিং লাইসেন্স করেন না কেন কারো মাধ্যমে কিংবা আপনি সরাসরি নিজে আপনাকে এ সকল কাগজপত্র দরকার পড়বেই।

ড্রাইভিং লাইসেন্স এর জন্য আবেদন

ড্রাইভিং লাইসেন্স এর আবেদন করার জন্য আপনাকে প্রথমে বিআরটিএর ওয়েবসাইট থেকে লার্নার ফরম ডাউনলোড করে নিতে হবে। লার্নার ফরম সংগ্রহ করার সময় আপনাকে নির্ধারিত ফি জমা দিতে হবে।

লানার কার্ড সংগ্রহ করা হয়ে গেলে আপনার জন্য একটি পরীক্ষা দিয়ে তৈরি হয়ে যাবে উত্তর দিতে আপনি কি সকল প্রকার লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষায় অংশ নিতে হবে এক্ষেত্রে আপনার মোবাইল নম্বর পরীক্ষার বিষয়ে সকল তথ্য পাঠানো হবে।

আপনি যদি সকল পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে থাকেন তাহলে আপনাকে একটি ফরম পূরণ করে এ স্মার্ট ড্রাইভিং লাইসেন্স এর জন্য সংশ্লিষ্ট অফিসে আবেদন করতে হবে

স্মার্টকার্ড ড্রাইভিং লাইসেন্স ফরম

নির্ধারিত ফরমে আবেদন।
রেজিস্টার্ড ডাক্তার কর্তৃক মেডিকেল সার্টিফিকেট।
ন্যাশনাল আইডি কার্ডের ফটোকপি।
নির্ধারিত ফি পেশসাদা-১৬৭৯/- ও অপেশাদার- ২৫৪২/- টাকা
ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্য পুলিশি তদন্ত প্রতিবেদন।
এক কপি পাসপোর্ট সাইজ ছবি

ড্রাইভিং লাইসেন্স চেক করার সফটওয়্যার

ড্রাইভিং লাইসেন্স অনলাইনে চেক করতে পারেন অথবা ড্রাইভিং লাইসেন্স চেক করতে পারেন আপনার এন্ড্রয়েড মোবাইল গুলোতে একটি অ্যাপস নামে নেয়ার মাধ্যমে। এপ্সটি সম্পর্কে ইতিমধ্যেই আর্টিকেলটির উপরে আমরা নানান তথ্য তুলে ধরার চেষ্টা করেছি।

ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়ন করার নিয়ম

পরিপূর্ণ একটি ড্রাইভিং লাইসেন্স আপনি পেয়ে যাওয়ার পর এটি নির্দিষ্ট একটি মেয়ে থাকে এই মেয়াদের পর আপনাকে ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়ন করতে হবে। আমাদের দেশে ড্রাইভিং লাইসেন্স সাধারনত দুই ধরনের হয়ে থাকে একটি হচ্ছে পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স আর অপরটি হচ্ছে অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স। এই দুটির ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়নের পদ্ধতি ভিন্ন দুটি পদ্ধতি আমরা নিচে তুলে ধরেছি।

পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়ন করার নিয়ম

আপনি যদি পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্সধারী হন তাহলে আপনাকে আবার একটি ব্যবহারিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে হবে । এই ব্যাবহারিক পরীক্ষায় পাশ করার পর নির্ধারিত ফি (মেয়াদোত্তীর্ণের ১৫ দিনের মধ্যে হলে ১৫৬৫/- ও মেয়াদোত্তীর্ণের ১৫ দিন পরে প্রতি বছর ২৩০/- টাকা জরিমানাসহ) জমা দিয়ে প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ বিআরটিএর নির্দিষ্ট সার্কেল অফিসে আবেদন করতে হবে। স্মার্টকার্ড প্রিন্টিংয়ের সব ধরনের প্রক্রিয়া সম্পন্ন হলে আপনাকে এসএমএসের মাধ্যমে জানিয়ে দেয়া হবে। এখানে পেশাদার লাইসেন্সের জন্য ২১ বছর বয়সী হতে হবে বাধ্যতামূলক।

অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়ন করার নিয়ম

আপনাকে প্রথমে নির্ধারিত ফি (মেয়াদোত্তীর্ণের ১৫ দিনের মধ্যে হলে ২৪২৭/- ও মেয়াদোত্তীর্ণের ১৫ দিন পর প্রতি বছর ২৩০/- টাকা জরিমানাসহ) জমা দিয়ে প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ বিআরটিএর নির্দিষ্ট সার্কেল অফিসে আবেদন করতে হবে। আবেদনপত্র ও সংযুক্ত কাগজপত্র সঠিক পাওয়া গেলে একই দিনে আপনার বায়োমেট্রিক্স গ্রহণ করা হবে । স্মার্টকার্ড প্রিন্টিং সম্পন্ন হলে আপনাকে এসএমএসের মাধ্যমে জানিয়ে দেয়া হবে । এখানে অপেশাদার লাইসেন্সের জন্য ১৮ বছর বয়সী হতে হবে বাধ্যতামূলক।

অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়ন ফরম

আপনি যখন বিআরটিএ অফিসে যোগাযোগ করবেন তখন আপনি অপেশাদার অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়ন করার পর পেয়ে যাবেন এবং এই ফর্ম গুলো সঠিক নিয়ম মোতাবেক পূরণ করার মাধ্যমে আপনি সহজেই ড্রাইভিং লাইসেন্স পেয়ে যেতে পারেন।

প্রিয় পাঠক আমরা যে আর্টিকেলটি তৈরি করেছি আর্টিকেলটি সম্পর্কে আপনার যেকোন প্রশ্ন কিংবা যে কোন জিজ্ঞাসা থাকলে সেটি আমাদেরকে কমেন্টের মাধ্যমে লিখে জানিয়ে দিতে পারেন আমরা আপনার মূল্যবান প্রশ্নের উত্তর দেয়ার চেষ্টা করব

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments

Maral gel
Maral gel
x
error: Content is protected !!